May 25, 2024, 11:47 am

ব্রেকিং নিউজ :
সাংবাদিকদের নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে হবে .. লায়ন মোঃ গনি মিয়া বাবুল নবনির্বাচিত কেন্দ্রীয় আরজেএফ যশোরের নেতৃবৃন্দের জেলা প্রশাসকের সাথে সৌজন্য সাক্ষাৎ আরজেএফ’র জাতীয় কাউন্সিলে বক্তারা দেশের উন্নয়ন ও মানবাধিকার রক্ষায় তৃণমূল সাংবাদিকদের ভূমিকা গুরুত্বপূর্ণ আরজেএফ’র জাতীয় কাউন্সিল উপলক্ষে রাজশাহীতে প্রস্তুতি সভা ফিলিস্তিনের মুসলমানদের ওপর হামলার প্রতিবাদে আলফাডাঙ্গায় বিক্ষোভ মিছিল ও গণ সমাবেশ লিবারেল ইসলামিক জোটের সাথে সম্মানীত ওলামা-মাশায়েখ দের মতবিনিময় অনুষ্ঠিত আলফাডাঙ্গায় ঝড়ে ক্ষতিগ্রস্ত পরিবারের মাঝে আর্থিক অনুদান দিলেন কাজী সিরাজ ১৬ অক্টোবর বিশ্ব মেরুদন্ড দিবস আরজেএফ তৃণমূল সাংবাদিকদের জন্য কাজ করে প্রশংসিত হয়েছে- লায়ন এইচ এম ইব্রাহিম ভুঁইয়া

শনির উপগ্রহে মিলল পানির ফোয়ারা!

আরজেএফ ভয়েস : পানির অপর নাম জীবন। আবার পানি থেকেই জন্ম নিতে পারে জীবন। আর এ কারণে শনির একটি উপগ্রহে পানির খোঁজ পেয়ে দারুণ উচ্ছসিত বিজ্ঞানী ও গবেষকরা। নতুন প্রজন্মের টেলিস্কোপ জেমস ওয়েব শনি গ্রহের একটি চাঁদে খুঁজে বের করেছে পানির বিশাল ফোয়ারা।
সম্প্রতি জেমস ওয়েব আবিষ্কার করে শনির ১৪৫ টি উপগ্রহ। এসব উপগ্রহ লক্ষ কিলোমিটারের বেশি দূর থেকে শনির চারপাশে ঘুরছে। এসব উপগ্রহের মধ্যেই একটি নাম এনসেলাডাস। এটি আকারে ছোট হলেও, সেখানে মিলেছে একধিক তথ্য। যা অবাক করছে বিজ্ঞানীদের।
সবচেয়ে বড় তথ্য, সেই এনসেলাডাসে পানির খোঁজ পেয়েছেন বিজ্ঞানীরা। টেলিস্কোপেই দেখা গেছে পানির ছবি। এতে অবাক বিজ্ঞানীরা। পানির ফোয়ারা বেরুচ্ছে সেখান থেকে। আর সেই পানির ফোয়ারার দৈর্ঘ্য কয়েক কিলোমিটার জুড়ে।
পানি ছাড়াও সেখানে পাওয়া গেছে জৈব কণাও। সেখান থেকে মিলতেও পারে প্রাণের সন্ধান। জেমস ওয়েব ছবিটি তুলেছিলো ২০২২ সালেই। ক্যাসিনি মহাকাশযান দেখেছিলো উপগ্রহটি। ক্যাসিনির স্পেকট্রোমিটারে পানির ফোয়ারা থেকে বোঝা যায়, সেখানে থাকতে পারে প্রাণ।
বিজ্ঞানীরা বলছেন, উপগ্রহে পানির ফোয়ারর পাশাপাশি জৈব কণাও ছড়াচ্ছে। এই কণাগুলোতে এমন অনেক জৈবিক ও রাসায়নিক কণা মিশে থাকতে পারে, যেখান থেকে প্রাণের আবিষ্কার করা যায়। জেমস ওয়েব ২০০২২ সালের নভেম্বরে এটির ছবি তোলে, আর ১৭ মে স্পেস টেলিস্কোপ সায়েন্স ইনস্টিটিউট তা প্রকাশ করে। এরপরই ছবিগুলো ঘুম কেড়েছে বিশ্বের।
নাসার গডার্ড স্পেস ফ্লাইট সেন্টারের র্বিজ্ঞানী সারাহ ফাগি জানান, টেলিস্কোপে যে দৃশ্য ধরা পড়েছে, তা থেকে বোঝা যাচ্ছে এগুলো বিশালাকার পানির ফোয়ারা। তবে এখনও এ নিয়ে গবেষণা করছেন বিজ্ঞানীরা।
সূর্যের তাপ এনসেলাডাসের ভূমিতে উপস্থিত তরল বরফ মহাসাগরকে বাষ্পীভূত করে। শনি গ্রহের মাধ্যাকর্ষণ সেই বাষ্পকে বাইরের দিকে টানে। তারপর প্রায়ই চাঁদের পৃষ্ঠ থেকে এই ধরনের ফোয়ারা বের হতে দেখা যায় বলে মনে করছেন বিজ্ঞানীরা।

শেয়ার করতে ক্লিক করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *




© All rights reserved © 2023 Rjfvoice.Com
Desing & Developed BY Gausul Azam IT.Com